জিরো আওয়ার – চিরঞ্জীব সেন

›› উপন্যাসের অংশ বিশেষ  

…..মেরি চুপ করে রইল।
কি কথা বলবে না? বটে? জিরাে যেন রেগে গেল, বলল, না তােমাকে মারব না তবে কথা বলার অন্য উপায় আছে, বলে জিরাে মেরির ব্লাউজটা জোরে টেনে ছিড়ে দিল। মেরির বুক উন্মুক্ত হয়ে গেল।
জিরাে তার কর্কশ হাত দিয়ে মেরির বুক সঙ্গোরে মর্দন করতে করতে বলল, কি ? এবার কথা বলবে?
জগদীশ যা বলেছে তার বেশি আমি কিছুই জানি না ?
জান না? দেখি তুমি কতক্ষণ কথা না বলে থাক। জিরাে এবার মেরির পা-জামার দড়ি খুলতে লাগল। সে ভেবেছিল যে মেরিকে নগ্ন করতে গেলেই জগদীশ মুখ খুলবে কিন্তু জগদীশ চুপ করে রইল। | জিরাে মেরির পা-জামার কোমরের দড়ি সবে খুলেছে আর ঠিক সেই সময়ে কেবিনের বন্ধ দরজায় কে আঘাত করল।…..

…..ডলি তােমার পােশাকের নিচে তত বিকিনি পরা আছে আমি বুঝতে পারছি। তুমি তােমার পােশাক খুলে হেলিকপটারে রাখ। তারপর ভেতরটা একটু দেখে এস।
ডলি পােশাকের নিচে সেদিন প্যান্ট আর ব্রা না পরে বিকিনি পরেই এসেছিল কারণ তার মতলব ছিল জগদীশের কাজ সেরে সে সুইমিং ক্লাবে যাবে।…..

….ঘরে ঢুকে রুবি বলল : জয় তুমি এক মিনিট বােসা। আমি ড্রেস চেঞ্জ করে আসি, বিকিনি ছােট্ট হলে কি হবে বেশ মােটা, গরম আর বুকে কোমরে বেশ এটে বসেছে। আমি এখনি আসছি স্ক্রীনে আড়ালে গিয়ে সঁতারের পােক বদলে রুবি একটা হাত । হাওয়াই সার্ট পরে এল। সামনের দিকে ওপরের দুতিনটে বােত দেয় নি, বুকের উপত্যকা বেশ স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। হাওয়াই সার | নিচে প্যান্টি ছাড়া আর কিছু নেই। জয়শংকরের চোখ চক চক করতে লাগল। রুবি বুঝতে পেরে গা চুলকোবার ছল করে ভেতরে হাত ঢুকিয়ে দিয়ে বক্ষ যুগলের প্রায় সবটাই উন্মুক্ত করে দিল, অবশ্য এক মিনিটের জন্যে।…..

…..না কাউকে বলব না। আর ছেলেমানুষ ফুটন্ত যুবতীকে জড়িয়ে ধরেছ এতে আর মনে করার কি আছে, তুমি বল

—আমি বৌদিকে আমার বুকের মধ্যে কসে জড়িয়ে ধরেছিলাম, আমার বুক দিয়ে তার বুক অনুভব করছিলাম, বলতে কি আমি আমাকে হারিয়ে ফেলেছিলাম….

Please follow and like us:

Leave a Reply